জানা- অজানা

কী আছে অপুকে পাঠানো শাকিবের তালাকনামায়?

কী আছে অপুকে পাঠানো শাকিবের তালাকনামায়?

চিত্রনায়ক শাকিব খান গত ৪ ডিসেম্বর সোমবার দুপুরে চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসকে তালাকের নোটিশ পাঠিয়েছেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেছেন, মুসলিম রীতি মেনে বিয়ের পর শাকিবের সাথে শর্ত অনুযায়ী গৃহিনী হয়ে না থাকার কারণে অপুকে তালাকনামা পাঠিয়েছেন তিনি।

অপু বিশ্বাস সোমবার জানিয়েছেন, এমন কোনো চিঠি তিনি এখনো হাতে পাননি। তবে প্রিয়.কম এর কাছে ৫ ডিসেম্বর দুপুর দেড়টার দিকে তালাকনামার একটি কপি এসে পৌঁছেছে।

সেখানে লেখা রয়েছে-

জনাব,

আমি শাকিব খান রানা, মো. আব্দুর রব ও রেজিয়া বেগমের ছেলে। গ্রাম ও পোস্ট অফিস: রাঘদি,পুলিশ স্টেশন: মুকসুদপুর, গোপালগঞ্জ-এর স্থায়ী বাসিন্দা। অপু ইসলাম খান ওরফে অপু বিশ্বাসকে, উপেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ও শেফালি বিশ্বাসের মেয়ে। গোপাল দেবদাস লেন, বগুড়া সদর, বগুড়া-৫৮০০ এর স্থায়ী বাসিন্দা, ১৬/০৩/২০০৮ সালে মুসলিম শরিয়া মোতাবেক বিয়ে করেছি।

কিন্তু বিয়ের এই সম্পর্ক চালিয়ে যাওয়া সম্ভব নয়। অতএব বিনীত নিবেদন এই যে, আমি শাকিব খান রানা, অপু ইসলাম খানকে ২২ নভেম্বর, ২০১৭-তে উপস্থিত সাক্ষীর সামনে তালাক শব্দটি উচ্চারণ করে তার সাথে সকল বৈবাহিক সম্পর্ক ছেদ করলাম।

আপনার বিশ্বস্ত
শাকিব খান রানা

সাক্ষীর নাম:
মোহাম্মাদ আলী
আতাউর রহমান

প্রিয়.কমে গত ৪ নভেম্বর ‘শাকিব-অপুর বিচ্ছেদের গুঞ্জন’ শিরোনামে খবর প্রকাশিত হয়েছিল। এদিকে সোমবার দুপুরের দিকেই জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাস তার কাছে তালাকনামা পাঠানোর খবর শুনতে পান। কিন্তু তিনি বিষয়টি বিশ্বাস করতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন। কারণ গত মাসে পুত্র আব্রামকে নিকেতনের বাসায় রেখে ভারতে যাওয়া নিয়ে শাকিবের সাথে নতুন করে যে টানাপোড়েনের সৃষ্টি হয়েছিল, অপুর ভাষায় সেটিও এখন ঠিক হয়ে গেছে। এ ঘটনার কয়েকদিন পর অপু তার পুত্রকে নিয়ে শাকিবের গুলশান ২ এর বাসায়ও গিয়েছেন।

অপু বিশ্বাস জানান, সেদিন তার শ্বশুর-শাশুড়ির সঙ্গে তার ভালোভাবেই কথা হয়েছে। আব্রাম তার বাবার সঙ্গে রাতে ঘুমিয়েছে। তখন শাকিবকে তার কাছে একজন দায়িত্ববান বাবা বলেই মনে হয়েছে। সে সময়কার প্রসঙ্গ টেনে অপু এও বলেছেন, তখন শাকিবের মধ্যে স্ত্রী ও সন্তানের বিষয়ে তার মধ্যে ইতিবাচক পরিবর্তনও দেখেছেন। কিন্তু গণমাধ্যমে প্রকাশিত তাদের ডিভোর্সের খবর এখনও বিশ্বাস হচ্ছে না তার!

তালাকনামার বিষয়টিকে একটি পারিবারিক বিষয় উল্লেখ করছেন অপু। এ নিয়ে পরিবারের সাথে আলোচনা করে পরবর্তী সিদ্বান্ত গ্রহন করবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। অপু বলেন, এখানে শুধু তিনি নন, শাকিব ও পুত্র আব্রামও এর সঙ্গে জড়িত। এ সিদ্বান্তের প্রভাব সবচেয়ে বেশি পড়বে আব্রামের ওপর। তবে এ বিষয়ে অপু আর এর বেশি কিছু বলেননি।

শাকিবের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও প্রযোজক মোহাম্মদ ইকবাল জানান, নানা কারণেই অপুর ওপর বিরক্ত ছিলেন শাকিব খান। এ বিরক্তি থেকে অনেক আগেই ডিভোর্সের চিঠিতে স্বাক্ষর করেন শাকিব খান। কিন্তু পাঠানো হয়নি অপু বিশ্বাসের কাছে।

গত ১ ডিসেম্বর ভারতের হায়দরাবাদ গিয়েছেন শাকিব খান। সেখানকার রামুজি ফিল্ম সিটিতে ‘নোলক’ নামের একটি ছবির শুটিংয়ে এখন ব্যস্ত রয়েছেন তিনি।

৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে এই ছবির শুটিং। সেখানে যাওয়ার আগেই তালাকনামায় সই করেন শাকিব। এ বিষয়ে ভাইবারে যোগাযোগ করা হলে শাকিব প্রিয়.কমকে বলেন, ‘অনেক আগ থেকেই আইনজীবীর সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হচ্ছিল। সকল আনুষ্ঠানিকতা শেষ করে আমি ভারতে আসার আগে তালাকনামায় স্বাক্ষর করে আসি। দেশে ফিরে বাকি কথা হবে।’

শাকিবের আইনজীবী সিরাজুল ইসলামের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রিয়.কমকে গতকাল বলেন, ‘তালাক নোটিশে দুটি কারণ দেখিয়েছেন শাকিব। প্রথম অভিযোগ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেছেন, অপু তাদের সন্তানকে বাসার কাজের লোকের কাছে রেখে, কথিত বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে ভারতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। দ্বিতীয় অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, যেহেতু অপু তার নির্দেশ মেনে চলেন না, ফলে তিনি এই বিবাহ বিচ্ছেদ চান।’

জানা গেছে, গত ৩০ নভেম্বর শাকিবের পক্ষ থেকে আইনজীবী তালাকের নোটিশটি পাঠান। কিন্তু অপু বিশ্বাস নোটিশটি গ্রহণ করেননি। অপুর নিকেতনের বাসা ছাড়াও তালাকের এই নোটিশটি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়রের কার্যালয় এবং অপুর বগুড়ার বাসার ঠিকানাতেও পাঠানো হয়েছে। কিন্তু এ তালাক কার্যকর হবে নোটিশ পাঠানোর তারিখ থেকে তিন মাস পর। আর বিয়ের দেনমোহর বাবদ সাত লাখ টাকা অপুকে পরিশোধ করবেন শাকিব খান। এছাড়া তিনি একমাত্র পুত্র সন্তান আব্রাম খান জয়ের ভরণ-পোষণ করবেন।

আইনজীবী সিরাজুল ইসলাম জানান, নিয়ম মেনে ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সালিশি পরিষদ দুজনকে ডেকে নিয়ে বসবেন, যেন সংসারটি ভেঙে না যায়। যদি শাকিব খান তারপরও মনে করেন এটাই তার চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত, তবে ৯০ দিন পর তালাকনামা স্বয়ংক্রিয়ভাবে কার্যকর হবে।

শাকিব খান ও অপু বিশ্বাস তাদের বিয়ের খবর গত নয় বছর ধরে গোপন রেখেছিলেন। এরপর এ বছরের ১০ এপ্রিল (সোমবার) বিকেল ৪টায় দেশের একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দিতে গিয়ে, একপ্রকার হাটে হাড়ি ভেঙে দেন অপু।

কলকাতার একটি ক্লিনিকে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর জন্ম হয় শাকিব-অপুর ছেলে আব্রাহাম খান জয়ের। সে সময় অপু বিশ্বাসের সিজারও করা হয়। এ বছরের ১০ এপ্রিল বিকেলে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে ছয় মাস বয়সের ছেলে আব্রামকে সঙ্গে নিয়ে উপস্থিত হন অপু। সেদিন অপু বলেন, ‘আমি শাকিবের স্ত্রী, আমাদের ছেলে আছে।’ বিষয়টি নাটকীয়তার জন্ম দেয়। এ খবর প্রকাশের পর থেকেই শাকিবের সঙ্গে অপুর মান-অভিমান চলছেই। একটা সময় গিয়ে এ নিয়ে শাকিবের সঙ্গে অপুর দূরত্ব তৈরি হয়।

অপু বিশ্বাস ২০০৪ সালে আমজাদ হোসেনের ‘কাল সকালে’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পা রাখেন। এরপর ২০০৬ সালে পরিচালক এফ আই মানিক পরিচালিত ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে নায়িকা হিসেবে শাকিব খানের বিপরীতে অভিনয় করেন তিনি। ২০০৬ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত টানা এই জুটি একাধারে ৭০টির মতো ছবিতে জুটি বাঁধেন। একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে একসময় পরস্পর প্রেমের বাঁধনে জড়িয়ে যান। এরপর ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিলেন শাকিব-অপু।

সর্বোচ্চ পঠিত

To Top
[X]